প্রযুক্তির কল্যানে প্রায় সবার পকেটে এখন ১, ২ অথবা ৩ ক্যামেরার মোবাইল ফোন। ঘরে-বাইরে ‘ছবি তোলা’ অনেকের কাছেই নিয়মিত একটি বিষয়। ক্যামেরা চালু করে ক্লিক করলেই ছবি উঠে, কিন্তু উদ্দেশ্যবিহীন কতক্ষন ছবি তোলা সম্ভব? অন্যদিকে নিজের পছন্দের বিষয়ে ছবি তুলতে তুলতেও অনেকে একসময় হাপিয়ে উঠেন। অর্থাৎ ছবি তোলার জন্য নিত্য নতুন উপলক্ষ্য দরকার, যা ফটোগ্রাফারের মনে নিয়মিত ছবি তুলতে আগ্রহ তৈরী করবে।
 
 
 
আগ্রহ এবং ধৈর্য্য নিয়ে চেষ্টা করলে একসময় সুন্দর ছবি অবশ্যই তোলা যায়। কিন্তু এতো এতো সুন্দর ছবি তুলে কি লাভ? ডিভাইস, ফেসবুক, ড্রপবক্সের মেমোরী পূর্ন করা? মানুষ দেখতে না পেলে পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর ছবিরও কোনো দাম নেই। অর্থাৎ ছবিকে নিজের সৌন্দর্য দেখাতে দর্শকের কাছে পৌছাতে হয়। কিন্তু বর্তমান বাস্তবতায় কোটি কোটি ক্যামেরায় তোলা হাজার কোটি ছবি দেখার মতো সময় কার আছে? আমরাতো এখন নিজের মোবাইলে অথবা ফেসবুকে থাকা নিজের ছবি নিজেই দেখার সময় পাইনা! ‘গুগল’ যেখানে মূহুর্তে পৃথিবীর জনপ্রিয় ফটোগ্রাফারদের সেরা ছবিগুলো আমাদের এনে দেখায়, সেখানে সাধারণ ফটোগ্রাফারদের ছবি কে দেখবে? কেনো দেখবে? কার এতো সময় আছে?
 
 
 
সুন্দর একটি ছবি তোলা হলো। অনেকগুলো জনপ্রিয় সাইটে আপলোড করা হলো। অনেকে দেখলো, আলোচনা-সমালোচনা হলো। কনটেস্ট-একজিবিশন ইত্যাদি বিভিন্ন ইভেন্টে গেলো, কিছু পুরস্কার/সার্টিফিকেট পাওয়া গেলো। ভাগ্য ভালো হলে খবরের বিষয়ও হলো। কিন্তু তারপর? তারপর অনলাইনে এর অনেকগুলো কপি তৈরী হলো। ফটোগ্রাফারকে না জানিয়ে অনেকে ছবিটিকে যথেচ্ছ ব্যবহার করা শুরু করলো। কয়েকজনতো নিজের নামেই ছবিটিকে বিভিন্ন মাধ্যমে চালিয়ে দিলো। কিন্তু কেউ জানলোনা ঐ ছবিটি ঠিক কয়টি সাইটে আপলোড হয়েছে, সর্বমোট কত জন ভিজিটর পেয়েছে। কোথাও থাকলোনা ছবিটি কয়টি ইভেন্টে অংশগ্রহন করে ঠিক কতোটি সম্মান অর্জন করেছে; অথবা কতবার খবরের বিষয় হয়েছে। দর্শকদের বড় অংশই জানলোনা, ছবিটির আসল ফটোগ্রাফার কে অথবা এর কপিরাইট কি ছিলো? ধীরে ধীরে একসময় ছবিটি অনলাইন, নিউজ ফিড থেকে অদৃশ্য গেলো। মানুষ হয়তো ভুলেই গেলো যে, এমন একটি ছবি ছিলো। অর্থাৎ নির্দিস্ট কোনো ছবির ব্যক্তিগত লগ তৈরী হয়না। একটি ছবির প্রাপ্তি এবং অর্জন সংক্রান্ত সকল তথ্য একসাথে থাকেনা বলেই হয়তো ছবির ইতিহাস তৈরী হয়না।
 
 
 
কোটি মানুষের হাতে কোটির বেশি মোবাইল ফোন; কোটি কোটি ক্যামেরা। কিন্তু সবাই কি ফটোগ্রাফার? সবার কি ছবি তোলা শখ? তাহলে এতো কোটি কোটি ক্যামেরা কি কাজে লাগবে? এমন কি করা যায়, যাতে কোনো ফটোগ্রাফারই হওয়ার দরকার নেই, একটি মোবাইল ক্যামেরার মালিক হলেই চলবে!
 
 
 
ছবি তোলার প্রতি আগ্রহ বাড়লো, ছবির ইতিহাস তৈরী হলো, মোবাইলের মালিক ফটোগ্রাফার হলো। সুন্দর ছবি আপলোড করায় ছবির সাইট/ফেসবুকের ভিজিটর হিট বাড়লো এবং তাদের বেশ আয় বাড়লো; কিন্তু এতো সবকিছুতে একটুখানি সুনাম ছাড়া ছবির মালিকের কি লাভ হলো? কি এমন করা যায়; যাতে সাইটগুলোর পাশাপাশি ছবির মালিক খুব অল্প হলেও আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারেন।
 
 
 
উপরের বিষয়গুলোকে মাথায় রেখে ২০১৬ সালের ১১ অক্টোবর “বাংলাদেশী ফটোগ্রাফি নেটওয়ার্ক” হিসেবে Salemypix.com যাত্রা শুরু করে। কিন্তু ‍সম্মানিত সদস্যদের অভিযোগ এবং অনুরোধের প্রেক্ষিতে প্রায় ২বছর পর নেটওয়ার্কের নতুন নাম হিসেবে AmarPix.com বেঁছে নেয়া হয়। ছবি-ফটোগ্রাফার এবং এই দু’য়ের সাথে সম্পর্কিত সমস্ত কিছু এই নেটওয়ার্কের মূল বিষয়। ইনস্টাগ্রাম, পিনটারেস্ট, ফ্লিকার, ইত্যাদি ছবির জনপ্রিয় নেটওয়ার্কগুলো তৈরী হয়েছে সারা বিশ্বের সবার চাহিদা মাথায় রেখে; নির্দিষ্ট কোনো ভূখন্ড অথবা জাতির জন্য নয়। আমারপিক্স.কম এর লক্ষ্য, দেশীয় প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশী ফটোগ্রাফারদের চাহিদা মাথায় রেখে স্থানীয়ভাবে কার্যকর একটি নেটওয়ার্ক তৈরী করা এবং ফটোগ্রাফি সম্পর্কিত এমন বিষয় খুঁজে বের করা, যা উপরের জনপ্রিয় নেটওয়ার্কগুলোতে নেই।
 
 
 
সম্মানিত ভিজিটর/সদস্যবৃন্দ, AmarPix.com সাইটি বর্তমানে "BETA Version" হিসেবে পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়েছে। অপর্যাপ্ত/অসম্পূর্ণ তথ্য, কোডিং এরর, স্লো লোডিংসহ সাইটটিতে আরো অনেক ধরনের সমস্যা রয়েছে। আমরা আশা করি বর্তমান সমস্যাগুলো সমাধান করে পেমেন্ট গেটওয়ে এবং মোবাইল এ্যাপসহ খুব শীঘ্রই মূল ভার্সনটি অবমুক্ত করা সম্ভব হবে। অনুগ্রহ করে আমাদের অপূর্নতা এবং সমস্যাগুলো ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। আমরা বিশ্বাস করি ১৮ কোটি মানুষের দেশে প্রতিটি সম্ভাবনাই অনেক বড় সম্ভাবনা। আপনাদের সংস্পর্শ আমাদের শক্তি এবং প্রেরণা যোগাবে। সৃষ্টিকর্তা আমাদের সহায় হোন।
 

 

 

Amar = আমার,  Pix =  পিক্সেল।

এই দৃষ্টিকোন  থেকে AmarPix শব্দের অর্থ আমারপিক্সেল। Pix শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে, কারন ডিজিটাল ফরম্যাটে দৃশ্যমান সব কিছুই এখন ‘পিক্সেল’ এর মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়। বর্তমানে এই নেটওয়ার্কে শুধুমাত্র ফটোগ্রাফি সম্পর্কিত সেবা যুক্ত করা হলেও,  ভবিষ্যতে গ্রাফিক ডিজাইন, চিত্রকলাসহ আরো সব বিষয় যুক্ত হবার পরিকল্পনা রয়েছে; যার সাথে পিক্সেল এর সম্পর্ক রয়েছে।   

 

এই সাইটের যাত্রা শুরু হয়েছিলো ‍Salemyix.com নামে। পরবর্তীতে সাইটের সদস্যদের অভিযোগ ছিলো যে, নামটি বড় এবং মনে রাখা কঠিন। পুরোটা ইংরেজী শব্দ এবং শুরুতেই Sale বা বিক্রয় শব্দটি রয়েছে। তাই ভবিষ্যতে কথা মাথায় রেখে, সম্মানিত সদস্যদের আপত্তি এবং অনুরোধের প্রেক্ষিতে পূর্বের নাম পরিবর্তন করে AmarPix.com নির্বাচন করা হয়। । 

 

একাউন্ট তৈরীর মাধ্যমে বাংলাদেশী যে কেউ AmarPix.com নেটওয়ার্কের সেবাগুলো ব্যবহার করতে পারবেন -


 

৪টি কপিরাইটে কনটেন্ট আপলোড -

CC-0, CC-BY, সংরক্ষিত এবং রয়্যালটি ফ্রি বিক্রয়; এই ৪টি কপিরাইট লাইসেন্সে ছবি/ডিজাইন আপলোড করা যায়।

 


 

অনক্লিক ইমেজ ক্রয়-

সদস্যগন যে ছবি/ইমেজ বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে সাইটে প্রকাশ করেন, ক্রেতা তা সরাসরি ক্রয় করতে পারেন। ছবি’র [ক্রয়] বাটনে ক্লিক করলে ক্রয়ের অপশন পাওয়া যায়। আপলোডকারীর ঘোষিত বিক্রয়মূল্যের সাথে ১৫% ভ্যাট এবং ১০% সার্ভিস চার্জ যুক্ত হয়। এই সম্পর্কে আরো জানতে ক্লিক করুন - https://amarpix.com/pages/single_faqs/photographers_faq#collapse15
 



আর্টজব অর্ডার -

ইমেজের সংখ্যা, বাজেট এবং বিস্তারিত চাহিদা উল্লেখ করে, ব্যক্তি অথবা প্রতিষ্ঠানের নামে ‘আর্টজব’ সেকশনে ‘অর্ডার’ পোস্ট করা যায়। AmarPix.com নেটওয়ার্কের সদস্যগন গ্রাহকের চাহিদানুযায়ী ছবি পোস্ট করে উক্ত অর্ডারে অংশ নিতে পারেন। এই সম্পর্কে আরো জানতে ক্লিক করুন - https://amarpix.com/artjob/help

 


 

ব্যক্তিগত অর্জন -

একটি ছবি বা ডিজাইনের নানা ধরনের এক্টিভিটিজ থাকে। যেমন- কনটেস্ট/প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন, বিভিন্ন মাধ্যমে দৈনিক-সাপ্তাহিক-মাসিক বিভাগে সেরা ছবি/ডিজাইনের পুরস্কার প্রাপ্তি, ইত্যাদি। AmarPix.com প্রতিটি কনটেন্টের ইতিহাস একসাথে প্রকাশের লক্ষ্যে কাজ করছে। এছাড়াও ফটোগ্রাফার এবং ডিজাইনার হিসেবে প্রাপ্ত সম্মাননাসমূহের তথ্য লগ আকারে প্রকাশ করা যায়।

 


 

অনলাইন ইভেন্টে অংশগ্রহন -

আমারপিক্স.কম নেটওয়ার্কে ছবি/চিত্র/ডিজাইন বিষয়ে বিভিন্ন ধরনের অনলাইন ভিত্তিক ইভেন্ট আয়োজিত হয়। যেমন- কাব্যচিত্র, ফটো কনটেস্ট, ক্যাপশন কনটেস্ট, প্রদশর্নী ইত্যাদি। প্রতিষ্ঠান অথবা সংগঠনের নামে পেইজ তৈরী করে এই  ইভেন্টগুলো আয়োজন করা যায়। নিবন্ধিত যে কেউ উক্ত ইভেন্টসমূহে অংশগ্রহন করতে পারেন এবং ভোট দিতে পারেন।

 


 

খবর -

বাংলাদেশী ছবি, ডিজাইন, চিত্র, ফটোগ্রাফার, চিত্রশিল্পী, ডিজাইনার, ইভেন্টসহ ভিজুয়্যাল আর্ট বিষয়ক দেশী-বিদেশী বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে ‘খবর’ সেকশন প্রকাশিত হয়।

 


 

জরুরী তথ্য -

বাংলাদেশে অবস্থিত ট্রেনিং ইনস্টিটিউট, আর্ট সেন্টার, একজিবিশন সেন্টার, ক্যামেরা সার্ভিস সেন্টারসহ প্রয়োজনীয় তথ্যসমূহ প্রকাশ করা হয়। নিবন্ধিত সদস্যগণ জরুরী তথ্য দিয়ে AmarPix.com সাইটে ‘তথ্য ভলান্টিয়ার’ হিসেবে সাহায্য করেন।

 


 

ডিজিটাল কয়েনশপ -

নেটওয়ার্কে বিভিন্ন কার্যাবলীর বিপরীতে অর্জিত‘ ডিজিটাল কয়েন’ দিয়ে ‘কয়েনশপ’ থেকে পছন্দসই ‘পণ্য’ সংগ্রহ করা যায়।

 


 

ক্যামবাজার -

ক্যামবাজার আমারপিক্স.কম এর একটি অনলাইন সেবা, যেখানে বিক্রেতাগন ব্যবহারকৃত পুরোনো ক্যামেরা, লেন্স, এক্সেসরিজসহ ফটোগ্রাফি সম্পর্কিত অন্যান্য বিক্রয়যোগ্য পন্যের তথ্য বিজ্ঞাপন আকারে পোস্ট করতে পারবেন। প্রতিটি বিজ্ঞাপনের বিপরীতে প্রদানকারীর একাউন্ট থেকে ১০০ কয়েন + ১৫% ভ্যাট পরিশোধ হয়।

 


 

ভিজুয়াল আর্ট মেন্টর -

AmarPix.com ভিজুয়্যাল আর্ট বিষয়ে সম্পৃক্ত বাংলাদেশী শিক্ষানবীশদের সুবিধার্থে ‘ভিজুয়াল আর্ট মেন্টর’ সেবা যুক্ত করেছে। এখানে নিজের আলোকচিত্র, ডিজিটাল পেইন্টিং, গ্রাফিক ডিজাইন; ইত্যাদি অর্ডার আকারে পোস্ট করে পরামর্শ চাওয়া যায়। সাহায্যকারী ‘মেন্টরগন’ সদস্যদের অর্ডারকৃত কনটেন্টগুলোতে টেক্সটের মাধ্যমে পরামর্শ দেন। প্রতিটি অর্ডারের বিপরীতে প্রদানকারীর একাউন্ট থেকে ১০০ কয়েন + ১৫% ভ্যাট পরিশোধ হয়। 

 

 

কাব্যচিত্র -

‘কাব্যচিত্র’ হচ্ছে নির্দিষ্ট কোনো বিষয়ে প্রদত্ত টাইটেল/টেক্সটের বিপরীতে ছবি/ইমেজের মাধ্যমে নিজের এ্যালবাম তৈরী করা। বাংলাদেশে জনপ্রিয় বচন, প্রবাদ, ছড়া, গল্প, কবিতা, গান, উপদেশ, সতর্কতা, নাগরিক দায়িত্ব, পণ্যের বিপণন; ইত্যাদি বিষয়ে কাব্যচিত্র আয়োজন করা হবে। ‘কাব্যচিত্র’ চ্যালেঞ্জে বিষয় অনুযায়ী একাধিক ফ্রেম দেয়া থাকে। অংশগ্রহনকারীগন ফ্রেমে প্রদর্শিত প্রতিটি টাইটেল/টেক্সট লাইনের সাথে সঙ্গতি রেখে ছবি/ইমেজ আপলোড করে সবগুলো ফ্রেম পূরনের মাধ্যমে নিজের সিরিজ এ্যালবাম তৈরী করেন।

 


 

বিষয় ভিত্তিক গ্রুপ -

আমারপিক্স.কম বাংলাদেশী প্রেক্ষাপটে ভিন্ন পদ্ধতির ‘গ্রুপ’ তৈরীর পরিকল্পনা করেছে। ফেসবুক গ্রুপের মতো এই ‘গ্রুপ’ তৈরী করা যায়না। এখানে নির্দিষ্ট বিষয়ে ‘গ্রুপ’ তৈরী করা থাকে এবং যে কেউ বিষয় ভিত্তিক পোস্টের মাধ্যমে গ্রুপগুলোতে অংশগ্রহন করতে পারেন। সদস্যদের মধ্য থেকে, অনলাইন ভোটে গ্রুপের ‘এডমিন প্যানেল’ নির্বাচন করা যায়। এডমিনবৃন্দ গ্রুপের নামে ইভেন্ট আয়োজন, অনুদান, বিজ্ঞাপন এবং প্রকাশিত কনটেন্ট নিয়ন্ত্রন করতে পারেন।

 


 

প্রাতিষ্ঠানিক পেইজ -

শিক্ষা এবং বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের নামে ‘পেইজ’ তৈরী করা যায়। প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত/সম্পর্কিত শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মী এবং গ্রাহকদের পোস্টকৃত ছবি/ডিজাইন ‘শাখা’ অথবা ‘বিভাগ’ অনুযায়ী প্রকাশ করা যায়। পেইজ পরিচালনার সুবিধার্থে একাধিক এডমিন/এডিটর নিয়োগ দেয়া যায়। ‘ফটোগ্রাফিক সোসাইটি/সংগঠনের’ কার্য্যকরী সদস্যদের নাম, ছবি, পদবীসহ প্রয়োজনীয় তথ্য যুক্ত করে ‘পূর্নাঙ্গ নির্বাহী কমিটি’ প্রকাশ করা যায়।  এছাড়াও ‘পেইজে’ নিচের অনলাইন ইভেন্টগুলো বিনা খরচে আয়োজন করা যায়-

 

ক) অনলাইন কনটেস্ট

বিষয়, এরিয়া, পুরস্কার, বিজয়ী সংখ্যা, পুরস্কার প্রদান পদ্ধতি, কপিরাইটসহ প্রয়োজনীয় তথ্য যুক্ত করে ছবি, চিত্র অথবা ডিজাইন বিষয়ে কনটেস্ট আয়োজন করা যায় এবং সহজে বিচারক/জুরি নিয়োগ করা যায়। ভোটদান ক্ষমতা নিয়ন্ত্রন করে পাবলিক, প্রাইভেট, সাইট মেম্বার; এই ৩ ধরনের অনলাইন কনটেস্ট আয়োজন করা যায়।

 

খ) ক্যাপশন কনটেস্ট

দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্যের কারনে ‘একই ছবি/চিত্র’ একেক মানুষের কাছে একেক রকম অর্থ বহন করে। ক্যাপশন কনটেস্ট হচ্ছে আয়োজকের প্রদর্শিত ‘ছবি/চিত্রের’ বিপরীতে নিজের পছন্দমতো মানানসই ক্যাপশন বা টাইটেল লেখার প্রতিযোগিতা। কনটেস্ট শেষে প্রাপ্ত পয়েন্টের ভিত্তিতে পুরস্কার হিসেবে ‘ডিজিটাল কয়েন’ পরিশোধ করা করা যায়।

 

গ) অনলাইন প্রদর্শনী

একটি সফল ‘প্রদর্শনী’ আয়োজনে অনেক মানুষের শ্রম, গনসংযোগ, ভেন্যু, আর্থিক যোগান এবং যথাযথ পরিকল্পনার দরকার হয়। পাশাপাশি দর্শনাথীদের বিষয়টি জানাতে প্রচারের প্রয়োজন হয়। যার ফলে ১৮ কোটি মানুষের দেশে ‘ছবি প্রদশর্নী’ আয়োজনের সংখ্যা খুবই কম। অন্যদিকে ব্যস্ত জীবন এবং অসহনীয় মাত্রার ‘ট্রাফিক’ ব্যবস্থার কারনে নির্দিষ্ট কোনো অনুষ্ঠানে সরাসরি অংশগ্রহন করা বাংলাদেশীদের জন্য দিনে দিনে কঠিন হয়ে পড়ছে। এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে আমারপিক্স.কম এমন একটি ‘প্রদর্শনী’ সিস্টেম উন্নয়নের চেষ্টা করছে। বর্তমানে এই নেটওয়ার্কে পেইজের পক্ষ থেকে বিষয় এবং সময়সীমা উল্ল্যেখ করে অনলাইন ভিত্তিক ছবি/চিত্র/ডিজাইন সম্পর্কিত প্রদর্শনী আয়োজন করা যায়। নির্দিষ্ট অংশগ্রহন ফি (ডিজিটাল কয়েন) এর বিনিময়ে আগ্রহী যে কেউ তাতে অংশগ্রহন করতে পারে। ‘অংশগ্রহন ফি’ হিসেবে সংগ্রহকৃত সমস্ত কয়েন ‘প্রদর্শনী ফান্ডে’ জমা হয়। ফলাফল ঘোষনার পর প্রতিটি ছবি/চিত্র/ডিজাইনের প্রাপ্ত রেটিং/পয়েন্ট এর ভিত্তিতে ‘প্রদর্শনী ফান্ডে’ জমাকৃত কয়েনের ৯০% ভাগ করে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সকল অংশগ্রহনকারীদের একাউন্টে পরিশোধ করা হয়। ‘প্রদর্শনী ফান্ড’ এর বাকি ১০% কয়েন ‘পরিচালনা ফি’ হিসেবে আয়োজক পেইজের একাউন্টে স্থানান্তর করা হয়।

 


 

কমিউনিটি/সংগঠন-

ফটোগ্রাফি বিষয়, ডিভাইস এবং এরিয়া অনুসারে বেশ কিছু গ্রুপ এবং ক্লাব আছে। এর মাধ্যমে গ্রুপ এবং ক্লাবগুলোর সেরা সদস্য এবং ছবিগুলোকে খুঁজে বের করা যায়। একইসাথে সদস্যদের অনুপ্রেরণা যোগাতে অনলাইনে আর্থিক অনুদান প্রদান করা যায়। প্রাপ্ত অনুদান মাস শেষে গ্রুপ এবং ক্লাবগুলোর সক্রিয় সদস্যদের মাঝে ভাগ করা হয়। নির্বাচিত কমিটির মাধ্যমে সংগঠনগুলো পরিচালনা করা যায়।

 

ক) বিষয় গ্রুপ

বিষয় অনুযায়ী ছবি পোস্ট করে গ্রুপগুলোতে অংশগ্রহন করা যায়।

 

 

গ) এরিয়া ক্লাব

বাংলাদেশের ৮ বিভাগ, ৬৪জেলা এবং ৬৫২ থানা অনুসারে সদস্যদের ভাগ করা হয়েছে।

 

 

খ) ডিভাইস ক্লাব

আমারপিক্স.কম নেটওয়ার্ক সদস্যদের আপলোডকৃত সমস্ত (EXIF ডাটা যুক্ত) ছবিগুলোকে ডিভাইস এবং মডেল অনুসারে প্রদর্শন করা হয়।

 

 

 

 


 

ফটোগ্রাফি পেশা -

ইন্টারনেট প্রযুক্তি সুবিধার কারনে ফটোগ্রাফি সম্পর্কিত অভিজ্ঞ মানুষদের কাজের সুযোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে, কারন স্থান এবং অবস্থান এখন কোনো সমস্যা নয়। AmarPix.com ফটোগ্রাফি বিষয়ে প্রচলিত চাহিদার পাশাপাশি ভবিষ্যত চাহিদা অনুসারে নতুন নতুন কাজের ক্ষেত্র অনুসন্ধানে কাজ করছে।

 


 

ফটোগ্রাফি বিষয় -

সকল ডাক্তারই ডাক্তার, কিন্তু সবাই সব বিষয়ে দক্ষ নন। একজন ফটোগ্রাফারের ক্ষেত্রেও তাই। একজন ফটোগ্রাফারের পছন্দ, চেষ্টা এবং অভিজ্ঞতা নির্দিষ্ট বিষয়ে তাকে দক্ষ করে তোলে। সাইটে নিবন্ধিত সদস্যগন তাদের পছন্দের ‘ফটোগ্রাফি বিষয়’ প্রকাশ করতে পারেন।

 


 

সাপ্তাহিক-মাসিক সেরা ২০ -

ছবির প্রাপ্ত স্কোর এবং ফটোগ্রাফারের জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে নেটওয়ার্কের মাসিক-সাপ্তাহিক সেরা ২০ ছবি এবং ফটোগ্রাফারের লিষ্ট স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রকাশ হয়।

 


 

জেলা/বিভাগ ফটোগ্রাফি -

নেটওয়ার্কের ছবি/ডিজাইন এবং সদস্যদের প্রাপ্ত স্কোরের ভিত্তিতে ৮ বিভাগ এবং ৬৪ জেলায় ভাগ করে প্রকাশ হয়।

 


 

ডাউনলোড -

সদস্যদের আপলোডকৃত ‘CC-0’ লাইসেন্সের কনটেন্ট বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ব্যক্তিগত অথবা বানিজ্যিক কাজে ব্যবহার করা যায়। ‘সংরক্ষিত’ লাইসেন্সের কনটেন্ট কপি অথবা ডাউনলোড করা যায় না। ‘বিক্রয়’ ক্যাটাগরীতে যুক্ত ছবি/ডিজাইনে মূল্য যুক্ত থাকে। ভবিষ্যতে অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ে সুবিধা যুক্ত করার পর ১ক্লিকে যে কেউ কম খরচে ছবি/ডিজাইন ক্রয় করতে পারবে।

 


 

শীঘ্রই যে সেবাগুলো যুক্ত হতে যাচ্ছে

* স্টক ফটোগ্রাফি

* চিত্রকাব্য এ্যালবাম

* কর্মশালা এবং ফটো ওয়াক

* বাংলাদেশী ফেসবুক ফটোগ্রাফি পেইজ-গ্রুপ লিষ্ট

* কপিরাইট সংক্রান্ত আইনজীবির খোঁজ

* বাংলাদেশী পুরোনো ছবির আর্কাইভ

* দেশী-বিদেশী ভাইরাল ছবি কর্নার

* ফটোগ্রাফি কুইজ, পাজল, গেম

* ফটোস্কুল (বিভাগ ভিত্তিক)

* পেনক্লিক ম্যাগাজিন

 

আয়কৃত কয়েন টাকায় ক্যাশ আউট - 

Amarpix.com সাইটের সদস্যবৃন্দ ‘আয়কৃত কয়েন’ নিজ মোবাইল ব্যাংকিং নম্বরে ‘টাকা’য় ক্যাশ আউট করতে পারবেন। ক্যাশ আউটের পূর্বে আপনার একাউন্টের ‘একাউন্ট তথ্য’ সেকশনে মোবাইল ব্যাংকিং নম্বর যুক্ত করুন।

 

ক্যাশ আউট করতে আপনার একাউন্টের [কয়েন রিপোর্ট] ট্যাবের [ক্যাশ আউট] অপশনে ক্লিক করুন।

 

 

 

প্রদর্শিত ফরমে ক্যাশ আউটের পরিমান লিখুন, এবং নতুন করে আপনার পাসওয়ার্ড দিয়ে নিশ্চিত হয়ে সাবমিট করুন।

 

 

 

 

ক্যাশ আউট শর্তাবলী-

 

১। প্রতি ১ কয়েন = ১ পয়সা হিসেবে সর্বনিম্ন ১০০ টাকা ক্যাশ আউট করা যায়।


২। ঘোষিত টাকার ১০% TDS এবং ১০% সার্ভিস চার্জ বাদ দিয়ে বাকী টাকা পরিশোধ করা হয়।


৩। প্রদত্ত মোবাইল ব্যাংকিং নম্বরে পরবর্তী ৩দিনের মধ্যে ক্যাশ আউটের টাকা পাঠানো হয়। 


৪। সর্বনিম্ন ১০০ (একশত) টাকা এবং প্রতিদিন সর্বোচ্চ ১বার ক্যাশ আউট করা যায়।


৫। কোনো সদস্য প্রোগ্রামিং স্ক্রিপের মাধ্যমে আয়-ব্যয়, ক্যাশ ইন-ক্যাশ আউট সেকশনে কোনো ধরনের তথ্য ম্যানিপুলেশনের চেষ্টা করলে, কারন দর্শানো ছাড়াই উক্ত একাউন্ট বাতিল ঘোষনা করা হবে।


৬। আপনার ক্যাশ আউট সম্পর্কিত ডাটা উন্মুক্ত তথ্য হিসেবে সাইটে প্রকাশিত হবে।


৭। কোনো ধরনের সমস্যা হলে অনুগ্রহ করে যোগাযোগ করুন https://www.facebook.com/amarpix/


নোট- ‘ক্যাশ আউট’ অপশনটি পরীক্ষামূলকভাবে রিলিজ করা হয়েছে। যে কোনো সমস্যার জন্য অনুগ্রহ করে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। 

 

--------------------------

 

 

সদস্য একাউন্টে কয়েন লোড 

ছবি ক্রয়,  ইভেন্টে অংশগ্রহন, আর্টজব এবং আর্ট মেন্টর সেকশনে অর্ডার প্রদান, অন্যকে উপহার প্রদান এবং সাইটের কিছু কিছু সেবা ব্যবহার করতে অতিরিক্ত কয়েনের প্রয়োজন হয়। একাউন্টে যথেষ্ঠ পরিমান কয়েন না থাকলে চাহিদানুযায়ী কয়েন লোড করা যায়। খুব শীঘ্রই নগদ, বিকাশ, রকেট অথবা ব্যাংকের মাধ্যমে নিজের আমারপিক্স.কম একাউন্টে ‘কয়েন লোড’ করতে পারবেন। আপনার প্রদত্ত টাকা ডিজিটাল কয়েনে রূপান্তর হয়ে আপনার একাউন্টে জমা হবে।

 

নোট- আমারপিক্স.কম একাউন্টে ব্যালেন্স লোড সিস্টেম নিয়ে কাজ চলছে। আশা করা যায় খুব শীঘ্রই সদস্যগন নিজের একাউন্টে চাহিদানুযায়ী ডিজিটাল কয়েন লোড করতে পারবেন। 

 

 

বাড়ী নং- ১৯৬, ব্লক-বি,

খিলগাঁও চৌধুরীপাড়া, ঢাকা-১২১৯

মোবাইল - 01977339959

ফেসবুক লিংক- https://www.facebook.com/amarpix/

ইমেইল - amarpixbd@gmail.com, admin@amarpix.com

0.0615
বন্ধ করুন  
  • হোমপেইজ
  • আমারপিক্স নোটিশ
  • কাব্যচিত্র
  • অনলাইন কনটেস্ট
  • ক্যাপশন কনটেস্ট
  • অনলাইন প্রদর্শনী
  • সদস্য লিষ্ট
  • দেশী - বিদেশী ইভেন্ট
  • আর্ট জব
  • বিষয় গ্রুপ
  • এরিয়া ক্লাব
  • ডিভাইস ক্লাব
  • ভিজুয়াল আর্ট মেন্টর
  • প্রাতিষ্ঠানিক পেইজ
  • কয়েণ শপ
  • ছবির খবর
  • জরুরী তথ্য
  • ফটোগ্রাফি বিষয়
  • ফটোগ্রাফি পেশা
  • ক্যামবাজার
  • সেরা ২০
  • আমাদের সম্পর্কে
  • লগইন
  • <pt>